হ্যাপি বাংলা

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস – তারিখ, প্রতিপাদ্য বিষয়, ইতিহাস, শুভেচ্ছা বার্তা, উক্তি, স্ট্যাটাস, ছবি

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস

মানসিক স্বাস্থ্য বলতে মানসিকভাবে অসুস্থ তাকে বুঝায়। আবার একজন মানুষের মন মানসিকতা যদি সুস্থ না থাকে তাহলে সে মানুষটাকে কখনো সুস্থ মানুষ হিসেবে ধরে নেওয়া হয় না। মানসিক রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে হাজার 992 সালে প্রথম বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালন করা হয়। আপনি যদি বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে চান? তাহলে, এই নিবন্ধটি ভালো করে অনুশীলন করুন।

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস কবে?

প্রতিবছর বিশ্বে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালন করা হয়ে থাকে। দেবশ্রীর সাধারণত 10 ই অক্টোবর পৃথিবীব্যাপী পালন করা হয়। যদিও কোন কোন দেশে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য সপ্তাহ বলে উদযাপন করা হয়ে থাকে।

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস প্রেক্ষাপট

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ঢাকা ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণায় দেখা গেছে, আমাদের দেশে প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠীর শতকরা 16 ভাগ, শিশু-কিশোরদের মধ্যে শতকরা 18 ভাগ মানুষ মানসিক সমস্যায় ভোগেন। অপরদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, প্রতি ৪০ সেকেন্ডের মধ্যে সারা বিশ্বের কোথাও না কোথাও কেউ না কেউ আত্মহত্যার মাধ্যমে প্রাণ হারান। আত্মহত্যাজনিত মৃত্যুর পর অধিকাংশ প্রতিরোধযোগ্য। অধিকাংশ ব্যক্তি আত্মহত্যার সময় কোন না কোন মানসিক রোগে আক্রান্ত থাকেন। সাধারণত মানসিক রোগ কে কতটা প্রাধান্য দেওয়া ? এটা নিয়ে অনেক প্রশ্ন থেকেই যায়। এই বিষয়গুলো মানুষের মাঝে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৯২ সালে প্রথম বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস ঘোষণা করা হয়। এই দিবসের মূল লক্ষ্য হচ্ছে মানুষের মাঝে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক সচেতনতা সৃষ্টি করা। কেউ যদি মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে থাকে তার সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে তোলাই এই দিবসের মূল লক্ষ্য।

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস এর শুভেচ্ছা বার্তা।

বর্তমান ইন্টারনেটের এই যুগে মানুষের জীবনের অতপ্রত ভাবে জড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়া। অর্থাৎ আপনি ও আপনার ছোছাল মিডিয়ার মাধ্যমে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের বার্তা সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারেন। এর জন্য আপনি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ার একাউন্ট ব্যবহার করতে পারেন। আপনি চাইলে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় সহ এর লক্ষ্য উদ্দেশ্য শেয়ার করতে পারেন। আর আপনি যদি গুছিয়ে সুন্দরভাবে কথা উপস্থাপন করতে না পারেন তাহলে আমরাই এই নিবন্ধে এরকমই কিছু শুভেচ্ছাবার্তা সংযুক্ত করেছে। এই বার্তা গুলো আপনি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতে পারেন।

“আপনার জন্য বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসে আন্তরিক শুভেচ্ছা। আসুন আমরা নিজেদের প্রতিশ্রুতি দিই যে আমরা কখনই মানসিক স্বাস্থ্যকে হালকাভাবে নেব না। ”

“কখনও কখনও ওষুধগুলি আমাদের প্রয়োজন হয় না কিন্তু একটি সুখী এবং সুস্থ জীবনের জন্য আমাদের মানসিক শান্তি, আত্মার শান্তি প্রয়োজন …. বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের শুভেচ্ছা। ”

যারা হতাশায় ভুগছেন তাদের প্রতি মনোযোগ দিন এবং ভালবাসা দিন। এটি মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতা দিবসের প্রকৃত অর্থ নিয়ে আসবে।

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয়

আজ ১০ অক্টোবর, বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস। সুস্থ শরীর ছাড়া যেমন সুস্থ মন সম্ভব নয়, তেমনি সুস্থ মন ছাড়া সুস্থ জীবন-যাপনও সম্ভব নয়। আর তাই সারা বিশ্বে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে প্রতিবছর পালন করা হয় ‘বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস’।এই দিবসটি উদযাপনের জন্য জাতিসংঘ প্রতিবছর দৃষ্টিতে আলাদা আলাদা প্রতিপাদ্য বিষয় এর উপর দিবসটি উদযাপন করে। আমি নিচে কয়েকটি বিগত বছরের প্রতিপাদ্য বিষয় তুলে ধরলাম।

এ বছরের  ২০২১ বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ‘অসম বিশ্বে মানসিক স্বাস্থ্য’।

২০২০ বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল   ‘সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য: অধিক বিনিয়োগ-অবাধ প্রবাহ।’

Exit mobile version